BIGtheme.net http://bigtheme.net/ecommerce/opencart OpenCart Templates
Tuesday , January 17 2017
Home / Uncategorized / ফিলিস্তিন ভূখন্ডে আরো ইহুদি বসতি বানাবে ইসরাইল

ফিলিস্তিন ভূখন্ডে আরো ইহুদি বসতি বানাবে ইসরাইল

পূর্ব জেরুজালেমের ফিলিস্তিনি ভূখন্ডে অবৈধ বসতি বন্ধের জন্য জাতিসংঘ নজিরবিহীনভাবে ইসরাইলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রস্তাব পাস করলেও এখানে আরও হাজার হাজার বসতি নির্মাণের অনুমতি দিতে যাচ্ছে ইহুদিবাদী দেশটি। আজ বুধবার জেরুজালেম স্থানীয় পরিকল্পনা ও নির্মাণ কমিটি গ্রিন লাইনের আশপাশে আরও ৬১৮টি বসতি নির্মাণের অনুমোদন দিতে যাচ্ছে বলে আশংকা করা হচ্ছে। ইসরাইলি দৈনিক হারেৎজ জানায়, চলতি সপ্তাহে বৈঠকে আরও বেশি বসতি নির্মাণের অনুমতি দেয়া হতে পারে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ফিলিস্তিনি ভূখন্ডে অবৈধভাবে ইসরাইলি বসতি নির্মাণের নিন্দা এবং নির্মাণ বন্ধ রাখার আহ্বান জানিয়ে গত সপ্তাহে একটি প্রস্তাব পাসের পর উদ্ধত ইসরাইল ৫ হাজার ৬শ বসতি নির্মাণের অনুমতি দিতে পারে বলে ইসরাইলি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়। ইসরাইল হেওম পত্রিকাকে ওই কমিটির প্রধান এবং জেরুজালেমের ডেপুটি মেয়র মেয়ার তুর্গম্যান বলেন, জেরুজালেমে আমরা কি করব তা নিয়ে জাতিসংঘ ভোট দিলে কিংবা অন্য কেউ নির্দেশ দেয়ার চেষ্টা করলে সেক্ষেত্রে আমরা উদ্ধতই থাকব। আশা করি ইসরাইলি সরকার এবং নতুন মার্কিন প্রশাসন আমাদের সমর্থন দেবে যাতে ওবামা প্রশাসনের সময় বসতি নির্মাণে যত ঘাটতি হয়েছে তা আমরা পূরণ করতে পারি।

ফিলিস্তিনের কাছ থেকে ১৯৬৭ সালে পূর্ব জেরুজালেম ও পশ্চিম তীর দখল করে ইসরাইল। পরে ইসরাইল পূর্ব জেরুজালেমের পুরো এলাকাকে নিজেদের রাজধানী বলে দাবি করে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইসরাইলি দাবি মেনে নেয়নি। ফিলিস্তিনিরাও পূর্ব জেরুজালেমকে তাদের রাজধানী বলে যৌক্তিক দাবি করে আসছে। হারেৎজ জানায়, চলতি বছর এখন পর্যন্ত পূর্ব জেরুজালেমে ১৫০৬টি বসতি নির্মাণের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ২০১৪ সারে এই সংখ্যা ছিল ৭৭৫টি আর ২০১৫ সালে ৩৯৫টি। শুক্রবার জাতিসংঘে ইসরাইলবিরোধী ভোটের পর জেরুজালেম পৌর কর্তৃপক্ষ জানায় যে তাদের অবৈধ বসতি নির্মাণ অব্যাহত থাকবে এবং পূর্ণশক্তিতে চলবে। শুক্রবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ইসরাইলের অবৈধ বসতির নিন্দা জানিয়ে প্রস্তাব উত্থাপন করা হলে তাতে দীর্ঘ প্রায় ৪০ বছরের প্রথা ভেঙে ভেটো দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র। এরপর মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বিরুদ্ধে তেলেবেগুনে জ্বলে ওঠেন ইসরাইলি ডানপন্থী প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু, যাদের দুজনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই শীতল সম্পর্ক চলছে। রোববার মন্ত্রিসভার বৈঠকে নেতানিয়াহু বলেন, আমাদের কোনো সন্দেহ নেই যে ওবামা প্রশাসন এটার (প্রস্তাবের) উদ্যোগ নিয়েছে, এর পক্ষে দাঁড়িয়েছে, এটার জন্য সমন্বয় করেছে এবং এটা পাসের জন্য জেদ ধরেছে। এরপর আরও নাটকীয় সিদ্ধান্ত নেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী। ইসরাইল যুক্তরাষ্ট্রের বড় সাহায্য গ্রহীতা হলেও বিকালে নজিরবিহীনভাবে ইসরাইলে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যানিয়েল শাপিরোকে সরাসরি নিজেই তলব করেন তিনি। হারেৎজ বলছে, ইসরাইলে কোনো মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে তলব করাকে সবেচেয় অস্বাভাবিক ঘটনা হিসেবে দেখা হয়।

READ  যে সেতুতে উঠতে হিম হয়ে আসে রক্ত!

সূত্র –এএফপি

Loading...

Leave a Reply

Loading...