BIGtheme.net http://bigtheme.net/ecommerce/opencart OpenCart Templates
Sunday , January 22 2017
Home / অন্যান্য / আদনান হত্যা…’বেরিয়ে এলো চমকে দেয়ার মতই তথ্য!
Loading...

আদনান হত্যা…’বেরিয়ে এলো চমকে দেয়ার মতই তথ্য!

সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে দিনকে দিন বাড়ছে ইন্টারনেটের ব্যবহার। সেই সুত্রে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক এখন কোটি মানুষ এর যোগাযোগ সহ ‘আত্মপ্রকাশের’ অন্যতম মাধ্যম হয়ে উঠেছে। প্রায় সকল শ্রেনী-পেশার মানুষদের অবাধ বিচরনের সুযোগ থাকার সুবাদেই গুরুত্বপুর্ন এই মাধ্যম হারাচ্ছে তার স্বকীয়তা। ফেসবুকে নিজের জনপ্রিয়তা

বাড়াবার ভয়ংকর লোভ পেয়ে বসেছে অনেকেরই। প্রতিদিনই এমন হাজারো-লাখো এটেনশান সীকারদের নানা উদ্ভট কান্ড দেখা যায় ফেসবুকে। সস্তা জনপ্রিয়তা বাড়াতে হন্যে হয়ে থাকা এমন মানুষরা লাইক, কমেন্টের জন্য শেষ অবধি নৃশংসভাবে কাউকে হত্যাও যে করতে পারে সেটাই হয়তো বাকি ছিলো দেখার!! এবার উপরোল্লিখিত ‘তুচ্ছ’ কারনের জন্যই খুন হতে হলো মেধাবী এক কিশোরকে ।

আদনান হত্যার পেছনে উঠে এসেছে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা গেছে, কিশোররা এলাকাভিত্তিক ‘গ্যাং’ বানিয়ে আধিপত্য বিস্তার করে। রাজধানীর উত্তরায় কিশোরদের এরকইম দুটো গ্রুপের নাম ‘নাইন স্টার’ আর ‘ডিস্কো বয়েজ।

‘ এইসব গ্রুপের লিড দেয় এলাকার ‘বড়ভাইয়েরা। ‘ এদের কাজ নিজ এলাকার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আধিপত্য ধরে রাখা। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রকাশ্যে ফেসবুক লাইভ ভিডিওতে হুমকি দেয়া হয়। এই দুই গ্রুপের বিরোধে আদনান কবীর নামক ওই ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সে সময় আদনান গ্রুপের ছেলেরা ছিল না তাকে একা পেয়েই মারধর করা হয়েছে।

উত্তরা পশ্চিম থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুর রাজ্জাক বলেন, সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টরের ১৭ নম্বর সড়কে আদনানকে মারধর করে বন্ধু-সহপাঠীরা। লাঠির আঘাতে সে গুরুতর আহত হয়। রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে গেলে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তবে, আদনান কোনো গ্রুপের সঙ্গে জড়িত ছিল না বলে দাবি করেছে স্বজনরা।

আদনানের মামা জিয়াউল হক বলেন, আদনান কোনো গ্রুপের সঙ্গে জড়িত ছিল না। এ বিষয়ে এখন অনেকেই বলাবলি করছেন। যারা আদনানকে খুন করেছে তারা হামলার আগে চাপাতি-হকিস্টিক নিয়ে ফেসবুকে ছবিও পোস্ট দিয়েছে। তাদের নামে থানায় বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ আছে। কিন্তু আদনানের নামে কোনো অভিযোগ নেই।

আরও পড়ুন   ১১টি বিশেষ সময়ের আমল আল্লাহ পাক সাথে সাথেই কবুল করেন!

ঘটনার দিনের বর্ণনায় তিনি বলেন, আদনানসহ চার-পাঁচজন সেদিন মাঠে ব্যাডমিন্টন খেলছিল। তারপর হঠাৎ করেই তারা সবার ওপরেই হামলা চালায়। আদনানের অন্য বন্ধুরা পালিয়ে যেতে পারলেও আদনান পালাতে পারেনি। হকিস্টিক ও চাপাতি দিয়ে আদনানকে আঘাত করে হামলাকারীরা। পেটে স্ক্রু ড্রাইভারও ঢুকিয়ে দেওয়া হয়।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, সে মাইলস্টোন কলেজ থেকে জেএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়ে পাস করে। তারপর নবম শ্রেণিতে ট্রাস্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভর্তি করা হয়। সে খুবই মেধাবী ছিল। এ বয়সে সবারই বন্ধু-বান্ধব থাকে। একসঙ্গে চলতে গেলে মনোমালিন্য হতেই পারে। কিন্তু বাচ্চা একটা ছেলেকে এত নির্মভাবে কীভাবে খুন করল? আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই। আর কোথাও যেন এমন ঘটনা না ঘটে।index

সোশ্যাল মিডিয়া এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিভিন্ন পোস্ট ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকেরই অভিযোগ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ১২ থেকে ১৮ বছরের কিশোররা ভয়ংকর সব অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে। এই সব অপরাধের বলি হয়েছে আদনান। এমনটাই ফেসবুকের বিভিন্ন পোস্ট থেকে জানা গেছে। এই বয়সের গ্রুপের ছেলেরা ফেসবুকে প্রকাশ্যে মদের বোতলের ছবি হাতে নিয়ে পোস্ট করে। প্রকাশ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘বাজে’ ভাষা ব্যবহার করে থাকে এরা। নাইন স্টার, নাইন এমএম, ডিস্কো বয়েজ এসব গ্যাং-এর নাম, যা উঠতি কিশোরদের গ্যাং।

ফেসবুকে ছড়িয়ে ছবি দেখে এমনটাই জানা গেছে। যাদের দেখা গেছে ফেসবুক ইনস্টাগ্রামে প্রকাশ্যে অস্ত্রের ছবি ব্যবহার করে ছবি পোস্ট করতে।

Loading...

Leave a Reply