BIGtheme.net http://bigtheme.net/ecommerce/opencart OpenCart Templates
Monday , January 23 2017
Home / অন্যান্য / ছাত্রীর কাছে বিধায়কের এ কেমন প্রশ্ন!
Loading...

ছাত্রীর কাছে বিধায়কের এ কেমন প্রশ্ন!

ভারতের বিহারে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা তদন্তে গিয়ে বেফাঁস প্রশ্ন করে বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন বিজেপি জোটের শরিক দল রাষ্ট্রীয় লোক সমতা পার্টির বিধায়ক লালন পাসোয়ান। স্কুলের শিক্ষক ও বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সামনে এক ছাত্রীকে একের পর এক আপত্তিকর প্রশ্ন করেছেন তিনি।

বুধবার এনডিটিভি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিহারের বৈশালী জেলায় একটি সরকারি গার্লস হোস্টেল থেকে গত রোববার দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। আজ এ ঘটনা তদন্তে নিজেই সেই হোস্টেলে গিয়েছিলেন বিধায়ক লালন পাসোয়ান। সেখানেই তিনি ক্যামেরার সামনে ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রীর এক বান্ধবীকে আপত্তিকর একাধিক প্রশ্ন করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই ছাত্রীকে বিধায়ক প্রশ্ন করে বলেন, ‘তুমি কী করে বুঝলে যে সে ধর্ষিত হয়েছে…?’ সবার সামনে বিধায়কের এই প্রশ্ন শুনে ছাত্রীটি বিব্রতবোধ করছিল। এ সময় বিধায়ক আবার প্রশ্ন করে বলেন, ‘তুমি শিক্ষিত একটি মেয়ে। তোমার উচিত সঠিক উত্তর দেওয়া। যদি তুমি আমাদের প্রশ্নের উত্তর না দাও, তাহলে কাল তোমার সঙ্গে একই ঘটনা (ধর্ষণ) ঘটলে তখন কী করবে?’

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিধায়ক লালন পাসোয়ান অভিযোগ করেন, হোস্টেলের মেয়েরাই ছেলেদের সঙ্গে মেলামেশা করে। তারাই এই সুযোগ করে দিয়েছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা এক শিক্ষিকাকে উদ্দেশ করে বিধায়ক বলেন, আপনাদের উসকানিতেই হামলাকারীরা মেয়েদের হোস্টেলে ঢোকার সুযোগ পেয়েছে।

ক্যামেরার সামনে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে এমন আপত্তিকর প্রশ্ন করায় বেশ বিতর্কের মুখে পড়েন বিধায়ক লালন পাসোয়ান। পরে তিনি আত্মরক্ষার্থে বলেছেন, তাঁর প্রশ্ন করার পদ্ধতি হয়তো ভুল ছিল, কিন্তু উদ্দেশ্য সৎ।

এ প্রসঙ্গে লালন পাসোয়ান বলেন, ‘আমার উদ্দেশ্য ছিল দলিত রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের মেয়েদের সাহায্য করা। এ কারণেই আমি তাদের কাছে ওই ঘটনার তথ্য জানতে চেয়েছিলাম…কিন্তু গণমাধ্যম বিষয়টি অন্য ভাবে তুলে ধরেছে।’

আরও পড়ুন   শিশুকে বাঁচাতে গিয়ে ৪ বন্ধুর মৃত্যু

সম্প্রতি বেঙ্গালুরুতে নববর্ষের প্রথম প্রহরে নারীদের শ্লীলতাহানির ঘটনার পর কর্ণাটকের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সমাজবাদী দলের বিধায়ক আপত্তিকর মন্তব্য করায় তোপের মুখে পড়েছিলেন।

Loading...

Leave a Reply